1. sm.bright420@gmail.com : Asok Halder : Asok Halder
  2. paulsazal16@gmail.com : Sazal Paul : Sazal Paul
  3. rnshakil.cnc@gmail.com : Shafiul Shakil : Shafiul Shakil
  4. sm.bright22@gmail.com : Sujit Mandal : Sujit Mandal
  5. takiakhan109@gmail.com : Takia BSMMU : Takia BSMMU
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:২৫ পূর্বাহ্ন

আমি, করলা এবং নার্সিং- অমিত হালদার

  • আপলোডের সময়ঃ রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০
  • ৬২১ বার দেখা হয়েছে।
বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখকঃ অমিত হালদার ,প্রথম ব্যাচ
কলেজ অব নার্সিং, শেরে বাংলা নগর, ঢাকা।

-আমার কাছে নার্সিং করলা এর মত!!

করলা লিখছি দেখে আবার কেউ নেতিবাচকভাবে নিবেন না দয়া করে।
-করলা, নার্সিং এবং আমি এই তিনটার মধ্যে আমি একটা অদ্ভুদ সম্পর্ক খুঁজে পাই। আমার মত হয় তো আরো অনেকেই খুঁজে পায় বা পেয়েছে অতীতে, সামনেও পাবে।

-আমি কয়েক বছর আগেও করলা খাইতাম না তিতা স্বাদ তাই। এছাড়া ছোট থেকেই জানতাম করলা তিতা হয় তাই তা যতদূর পারতাম দূরে রাখার চেষ্টা করতাম। আমাকে কেউ এর অদ্ভুদ বৈশিষ্ট্য বা গুন সম্পর্কে অবহিত করে নি। নিজের অজান্তেই বাধ্য হয়ে একদিন করলা খেয়ে ফেলি, আসলে করলা কিন্তু অতটা তিতা না, আপনাকে সঠিক প্রক্রিয়ায় করলা রান্না করতে হবে তার গুণাবলীর উপর ভিত্তি করে করলা খেতে হবে। এরপর থেকে আমি করলা একটু আধটু খাওয়া শুরু করি এখন মোটামুটি খেতে পারি। আমি করলার গুণাবলী সম্পর্কে জেনে আরো চেষ্টা করি যে করলা খেতে হবে কিছুটা তেতো হলেও।
আমি বর্তমানে একজন নার্সিং শিক্ষার্থী , নার্সিং এর আবির্ভাব আমার কাছে হুবহু করলা এর মতোই। নিজের অজান্তেই এক পর্যায়ে বাধ্য হয়ে এই নার্সিং এ আসা। এখন আমার কথাটা হলো আমাকে বাধ্য হয়ে কেনো আসতে হলো, কেনো আমি অন্যদের মত বা অন্য পেশা এর মত নিজের ইচ্ছা তে নার্সিং এ আসতে পারলাম না। এর পিছনে দায়ী কিন্তু ওই করলা এর মত এই, আমার সমাজ অনেক পিছিয়ে , সমাজ বা পরিবার থেকে আমাকে কেউ উৎসাহ দেয় নি। এবং তিতা এর মত এর মধ্যে ও তেতো কয়েকটা শব্দ যোগ করে দিয়েছে যে নার্সিং ভালো না পেশা হিসেবে। নার্সদের সমাজে মূল্য কম। সবাই উৎসাহ দিতো ডাক্তার বা প্রকৌশলী হতে কিন্তু আমার মন তো অন্য কোথাও ছিল ,আমার ইচ্ছা সেই ছোট থেকেই আমি একজন শিক্ষক হবো। যদিও ডাক্তার, প্রকৌশলী থেকেও শিক্ষক হওয়া যায় কিন্তু আমি তখন বুঝতাম না, বুঝানোর মত কাউকে পাই ও নি।নার্সিং সম্পর্কে জানে বা ভালো করে বুঝে এর গুরুত্ব এমন কাউকে পাইনি যিনি আমাকে এই পেশা তে আসার জন্য উৎসাহ দিবে এর গুরুত্ব আমাকে বুঝাবে। করলা এর মতন এখন নার্সিং ও আমার মাথায় রাজ করতে শুরু করেছে। আমি অনেকের মাধ্যমে , ইন্টারনেট এর কল্যাণে , নিজের উপলদ্ধি থেকে নার্সিং কে বুঝতে শুরু করেছি তাই আমি চাই অদূর ভবিষ্যৎ এ আমার মাথায় নার্সিং সম্রাট হয়ে থাকবে।

-এবার আসুন দেখা যাক করলা এমন কি জিনিস যে এর সাথে তুলনা করতে হলো। জেনে নেই করলা তে কি কি রয়েছে এর উপকারিতা কতটুকু:

-করলা একে আমরা অনেকেই উচ্ছা নামেও চিনি। এর মধ্যে, শর্করা, প্রোটিন, ফ্যাট, ফাইবার, নিয়াসিন, প্যাণ্টোথেনিক এসিড, ভিটামিন – এ, ভিটামিন – সি, সোডিয়াম, পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, কপার, ম্যাঙ্গানিজ, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, জিংক কি নেই এর ভিতর, মনে হচ্ছে সব খাদ্য পুষ্টি উপাদান গুলো একা নিয়ে রাজত্ব করতেছে।
-এর উপকারিতা এর কথা তে আসলে প্রথমেই বলতে হবে রোগের মা হিসেবে বিখ্যাত ডায়াবেটিস এর কথা। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি উত্তম খাবার হিসেবে বিবেচিত। প্রতিদিন করলার রস খেলে রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকে। কমবেশি সবারই এলার্জি আছে , এলার্জি এর জন্য করলা এর রস মারাত্মক উপকারী। আয়ুর্বেদ চিকিৎসা অনুসারে করলার রস কৃমিনাশক এ দারুন কাজ করে এছাড়া কাশি ও দুর করে। বাত এর ব্যাথা এর ক্ষেত্রে করলার রস নিয়মিত খেলে বাত এর ব্যাথা ও দূর হয়। ক্ষতস্থানে করলা গাছ এর পাতা বেটে রস দিলে দু একদিনের মধ্যেই ক্ষত শুকিয়ে যায়। চর্মরোগ এর ক্ষেত্রে ও এটি দারুন উপকারী। এছাড়াও জন্ডিস, বা লিভার এর অন্যান্য সমস্যা এর ক্ষেত্রে ও এটি ভালো কাজ করে। অরুচি এর ক্ষেত্রে করলা খেলে মুখে রুচি ফিরে আসে।
উপকারিতার সব কিছু একা নিয়ে বসে আছে।

-নার্সিং এর উপকারিতা ও আমার কাছে বৈচিত্রময়। এ যেনো আমাদের কাছে, আমাদের সমাজের কাছে করলার মতন তিতে কিন্তু এটা একটি গুরুত্বপূর্ণ পেশা যার উপকারিতার শেষ নেই করলার মতন এই, যদি আমরা সঠিক ভাবে এর ব্যবহার করতে পারি।
আপনাকে অনেকগুলো ধাপ অতিক্রম করে তবেই এখানে আসতে হবে। আপনি বা আমার সমাজ যারা খালি চোখে দেখতে পাচ্ছেন তা শুধুই মরীচিকা ছাড়া আর কিছুই নয়। আমাদের দেশ এ হয় তো এখনও এটি জনপ্রিয় বা অধিকতর ভালো মানসম্পন্ন হয়ে উঠতে পারে নি। এর জন্য আপনি আমি এই দায়ী। আমরা বা আপনারা আমাদের সন্তানদের নার্সিং এ আসতে উৎসাহ দেই না। আমাকে এই কেউ দেয় নি অন্যদের আর কি বলবো। তবে অনেকেই আছেন উৎসাহ থেকেই এসেছেন। কেনো উৎসাহ দেয় না তাও বলি , প্রথম কারণ মডার্ন নার্সিং সম্পর্কে ৯৫% সাধারণ জনগরণের কোনো ধারণা এই নেই। নার্সিং শিক্ষা এর গভীরতা কতদূর অনেকেই জানেন না।
ডাক্তার যদি বুদ্ধিমত্তা হয় তবে একজন নার্স বাকি সম্পূর্ন শরীর যে ডাক্তার এর সেবা নির্দেশ পুঙ্খানপুঙ্খভাবে সম্পাদন করে থাকে। দেখুন একটা পেশা তখনই সঠিকভাবে ভূমিকা পালন করতে পারে যখন সেখানে মেধাবীরা প্রবেশ করে।আমরা বা আপনারা এই মেধাবীদের অনুৎসাহিত করবেন নার্সিং পেশা কে হেয় প্রতিপন্ন করবেন আবার আপনারা এই বিশ্বমানের নার্সিং সেবা দাবি করবেন। আমি এর কোনো ব্যাখ্যা এতদিন এ পেলাম না। ভালো সাস্থ্য সেবা পেতে হলে নিজেকে সুস্থ রাখতে হলে চিকিৎসা পেশা এর পাশাপাশি নার্সিং পেশা তে ও মেধাবীদের উৎসাহিত করুন। অতীতে , বর্তমানে মেধাবীদের অনুপ্রবেশ ঘটেছে তবে সেটা চাহিদার তুলনায় কম।
সাস্থ্য সেবা এটা একটি সম্মিলিত কার্যক্রম। কেউ এককভাবে এটি সম্পন্ন করতে পারবে না। ডাক্তার ,নার্স, টেকনোলজিস্ট সকলকে অধিক দক্ষতা সম্পন্ন হতে হবে তবেই উন্নত সেবা নিজে থেকেই হাজির হবে। জব সেটিসফেকশন আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস যা মেধাবীদের আগ্রহ বাড়ায়।
-বিশ্বজুড়ে বর্তমানে নার্সিং পেশা জনপ্রিয় তার সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ এ ও এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে একটা সম্মানজনক অবস্থানে গিয়ে পৌঁছিয়েছে। সামনে আরো উপরের দিকে উঠবে তার স্বমহিমায়। এই পৃথিবীর সবকিছুই যোগ্য দের জন্যই। যাদের আপনি অযোগ্য হিসেবে বিবেচ্য করছেন তারা সাময়িকভাবে অবতীর্ণ। যোগ্যতার বিচারে একদিন ঠিকই যে যার জায়গা বুঝে নিবে।

-সুদূর আমেরিকা এর সবথেকে সম্মানিত পেশা তে সবার প্রথমেই নার্সিং এবং সেটা টানা ১৮ বার বতমানেও সবথেকে বেশি রেটিং নিয়ে নার্সিং এই প্রথম। এবং এটি এই সবথেকে বেশি বিশ্বস্ত পেশা। এরকম আরো বিভিন্ন দেশে নার্সিং অনেক এগিয়ে। তাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ও এগিয়ে জনগন এর আস্থা ও আছে তাদের উপর। তাদের নার্সিং শিক্ষার গভীরতা অনেক বেশি।
-এখন কথা সেটা নয়। আমেরিকা,কানাডা, অস্ট্রেলিয়া বা সুইডেন এর নার্স দের এত এত সম্মান সেগুলো তে আমাদের কিছুই হবে না। তাদের তো অনেক কিছুই আছে তাদের তুলনায় আমাদের কি আছে? আমরা কি করি আমাদের জন্য। আমরা তো বরং অনুৎসাহিত করি , লাঞ্ছিত করি, হাসাহাসি, কাদা ছোড়াছুড়ি। এগুলি বাদ দিন নিজেদের নিয়ে ভাবুন।

-চারিদিকে শুনি উন্নত দেশগুলোর শিক্ষা ব্যবস্থা উন্নত , তাদের পদ্ধতি ভিন্ন, পরিবেশ ভিন্ন। আমার মন চায় আমি সেদেশ এ যাবো দেখবো নিজের চোখে, উপলদ্ধি করবো কোথায় ভিন্নতা তারা কতটা এগিয়ে ,তাদের মধ্যে এমন কি আছে যা আমাদের মাঝে নেই।
আমি সেই দেশ গুলো তে কাজ করতে চাই দেখবো সেখানে তারা কিভাবে কাজ করে আর আমাদের কোথায় ভিন্নতা। আমি শুধু শুনে শুনে থামতে চাইনা। অবশেষে নিজের দেশ এ ফিরতে চাই যেখানে তুলে ধরবো ভিন্নতা , নিয়ে আসবো পরিবর্তন।

সবাই স্বপ্ন গুলো দেখুন তবে জেগে জেগে , ঘুমিয়ে নয় কিন্তু।

-আমি ভালোবাসি করলা আর নার্সিং কে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো খবর
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। বিডিনার্সিংনিউজ.কম
কারিগরি সহায়তায়- সুজিৎ মন্ডল